Receive up-to-the-minute news updates on the hottest topics with NewsHub. Install now.

আমি আজ শুধু একটি দাবি নিয়ে এসেছি......-724258

January 9, 2019 7:58 AM
228 0

দুই পিতা নিজেদের কাঁধে যখন তুলে নেয় নিজেদের একমাত্র প্রিয় কন্যার লাশ, প্রিয় মা যখন মা ডাক শোনার আকুতি নিয়ে পোশাকধারী পুলিশ অফিসারকে জড়িয়ে ধরে কাঁদেন, তখন পুলিশের কঠিন পোশাক পেঁজা তুলার মত ভেসে যায়। চোখের অশ্রুই নীরব ভাষা হয়ে কথা বলে!

প্রাথমিক জবানবন্দিতে আসামিরা এ ঘটনার দায় স্বীকার করে নিয়েছে। এ কেমন জীবন? মানুষের পশুবৃত্তি থেকে নিষ্পাপ ফুলের মত বাচ্চা কেন রেহাই পাবে না!

বাচ্চা দুটোর চেহারা থেকে থেকে চোখে ভাসছে। দুই রাত ঘুমুতে পারিনি। বারবার চোখ পানিতে ভেসে যাচ্ছে। ওদের পরিবারকে কী শ্বান্তনা দেবো, নিজেকেই তো নিয়ন্ত্রণ করতে পারছি না! আহা! ছোট্ট মায়েরা আমার। মা বাবার আদরের ধন সোনা পাখি দোলা, নুসরাত কেমন আছো মায়েরা আমার? ওপারে সৃষ্টিকর্তার কাছে পরম যতনে আছো তাইনা মা?

নিজে সন্তানের পিতা হলে আরেক পিতার কষ্ট উপলব্ধি করা যায়। আমি এই সমাজকে ধিক্কার দেই, যে সমাজে মোস্তফা-আজিজুলের মত বিকৃত রুচির মানুষ বসবাস করে। দুঃখ এখানেই যে এই কাপুরুষদেরও নিজ কন্যা সন্তান রয়েছে। তারপরও আরেকজনের সন্তানকে গলা টিপে মারতে ওদের হাত কেঁপে ওঠেনি! এ কেমন জনম? এ কেমন বেঁচে থাকা ওদের?

আমার দাবি আইনজীবী ভাই বোনদের প্রতি, আপনারা যারা ওকালতির মাধ্যমে বিচারিক প্রক্রিয়াকে ত্বরাণ্বিত করেন, দয়া করে ফুলের মতো বাচ্চা দুটোর হন্তারকের পক্ষে কেউ আইনি লড়াইয়ে নামবেন না। একটিবার দোলা আর নুসরাতকে আপনার নিজের সন্তান ভাবুন। ওদের বাবা মায়ের জায়গায় নিজেকে দাঁড় করান! আপনারাও তো চান অপরাধীর শাস্তি হোক। তাই ওদের পক্ষে পেশাগত জায়গা থেকে কেউ লড়বেন না প্লিজ। আপনার পেশাগত দিক আপনাকে যে কারো পক্ষে লড়ার কথা মনে করিয়ে দিতেই পারে। কিন্তু যে অপরাধীর স্ত্রী নিজে তার স্বামীর শাস্তি প্রত্যাশা করেন, তার জন্য আপনার তো কোনো দায় থাকার কথা না! একটিবার একটি বিরল দৃষ্টান্ত উপস্থাপন করুন না! আপনাদের শিশু সন্তানেরা যেন আপনাদের নিয়ে গর্ব করতে পারে সেরকম একটি উদাহরণ সৃষ্টি করুন প্লিজ। একটিবার আমাদের বাচ্চাদের বুঝতে দিন ওরা কমপক্ষে আমাদের কাছে নিরাপদ। আমার এই দাবিটি রাখুন প্লিজ। এটি আমার অন্তরের চাওয়া...

আজ দোলার ৫ম জন্মদিবস উদযাপিত হতো যদি ও বেঁচে থাকতো। এই নিষ্ঠুর পৃথিবীর বিকৃত মানসিকতার পশুদের জন্য আমাদের সন্তানেরা অনিরাপদ রয়েছে। সারা বিশ্বব্যাপী এর আগ্রাসন বিস্তার করেছে। এর সমাধান কঠিন আইন প্রয়োগ আর সচেতনতায়! আইনের যথাযথ প্রয়োগে তৎপর আছি আমরা, আপনারা সচেতনতায় তৎপর হোন দয়া করে!

উত্স: kalerkantho.com

সামাজিক নেটওয়ার্কের মধ্যে শেয়ার করুন:

মন্তব্য - 0